মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

দর্শনীয় স্থান

ক্রমিক নাম কিভাবে যাওয়া যায় অবস্থান
টাঙ্গুয়ার হাওর

বর্ষাকালে শহরের সাহেব বাড়ি নৌকা ঘাট থেকে ইঞ্জিন বোট বা স্পীড বোট যোগে সরাসরি টাঙ্গুয়া যাওয়া যায়। ইঞ্জিন বোটে ৫ ঘন্টায় এবং স্পীড বোটে ২ ঘন্টা সময় লাগে। সেক্ষেত্রে ইঞ্জিন বোটে খরচ হয় ২,০০০/- থেকে ২,৫০০/- টাকা পক্ষান্তরে স্পীড বোডে খরচ হয় ৭,৫০০/- থেকে ৮,০০০/- টাকা। বেসরকারী ব্যবস্থায়পনায় সেখানে রাত্রি যাপনের কোন ব্যবস্থা নেই তবে সরকারী ব্যবস্থাপনায় ৩ কিঃ মিঃ উত্তর-পূর্বে টেকেরঘাট চুনাপাথর খনি প্রকল্পের রেস্ট হাউজে অবস্থান করা যায়। গ্রীষ্মকালে শহরের সাহেব বাড়ি খেয়া ঘাট পার হয়ে অপর পার থেকে প্রথমে মোটর সাইকেল যোগে ২ ঘন্টায় শ্রীপুর বাজার/ডাম্পের বাজার যেতে হয়। ভাড়া ২০০ টাকা। সেখান থেকে ভাড়াটে নৌকায় টাঙ্গুয়া ঘরে আসা যায়। সেক্ষেত্রে ভাড়া বাবদ ব্যয় হতে পারে ৩০০-৪০০/- টাকা।

হাসন রাজার স্মৃতি বিজড়িত জমিদার বাড়ী

সুনামগঞ্জের ট্রাফিক পয়েন্ট এলাকা থেকে গাড়ি যোগে ৫মিনিটে গন্তব্য স্থানে পৌঁছা যায়।

ডলুরা শহীদদের সমাধি সৌধ

শহরের নবীনগর নামক স্থান থেকে সুরমা নদী খেয়া যোগে পার হয়ে হালুয়াঘাট থেকে অথবা শহরের বালু মাঠ নৌকা ঘাট থেকে ইঞ্জিন নৌকা যোগে হালুয়াঘাট থেকে রিক্সা অথবা টেম্পু যোগে ৫/৬ কিঃ মিঃ পথ অতিক্রম করে ভারতীয় সীমান্তের কাছাকাছি ডলুরা নামক স্থানে পৌঁছতে হয়। রিক্সাভাড়া ৫০ টাকা, টেম্পু ভাড়া ২০ টাকা।

জগন্নাথ জিউর আখড়া, জামালগঞ্জ, সাচনাবাজার।

সুনামগঞ্জ সদর থেকে সড়ক ও নদী উভয়পথে যাওয়া যায়। যেতে প্রায় ২ ঘন্টা সময় লাগে।

গৌরারং জমিদার বাড়ী

সুনামগঞ্জ সদর হতে ওয়েজখালী হয়ে নৌকাযোগে টুকের বাজার থেকে রিক্সা, মোটরসাইকেল, সিএনজি, ইজিবাইক ইত্যাদি যোগে যাওয়া যায়।

পাগলা মসজিদ, দক্ষিন সুনামগঞ্জ

সুনামগঞ্জ সদর থেকে অল্প সময়ে সড়ক পথে যাওয়া যায়।

পাইলগাও জমিদার বাড়ি

উপজেলা সদর হতে সড়ক পথে (জীপ/কার/সিএনজি/বাইক)

রাধা রমন দত্ত এর সমাধি

উপজেলা সদর হতে গাড়ি/রিক্সা যোগে

আছিম শাহ'র মাজার

উপজেলা সদর হতে পায়ে হেঁটে/রিক্সা/গাড়ি।

১০ মরহুম - বাউল সর্ম্রাট শাহ আব্দুল করিম এর বাড়ি ।

দিরাই উপজেলা হইতে হেমন্তে রিস্কা ৫০/- সি এন জি ২০/- মটর বাইক ৫০/- , বর্ষায় নৌকা ২০/- ।

১১ সুনামগঞ্জ ঐতিহ্য জাদুঘর

যে কোন যানবাহনে সুনামগঞ্জ শহরে নেমে রিক্সা/অটো/পায়ে হেটে সুনামগঞ্জ পুরাতন কোর্ট এর সামনে নামলেই সুনামগঞ্জ ঐতিহ্য জাদুঘরে আসা যায়

১২ ছাতক সিমেন্ট ফ্যাক্টরী

ঢাকা হতে সরাসরি বাস যোগে ছাতকে আসলেই ছাতক সিমেন্ট ফ্যাক্টরী পাওয়া যাবে।

১৩ যাদুকাটা নদী

দেশের যে কোন স্থান থেকে বাস যোগে সুনামগঞ্জ এসে টেম্পু/সিএনজি/নৌকা যোগে যাদুকাটা নদীতে যাওয়া যায়।

১৪ সুরমা নদী

দেশের যে কোন স্থান হতে নদী পথে সুরমা নদীতে আসা যায়।

১৫ বারেকের টিলা

বর্ষায় সুনামগঞ্জ শহরের সাহেব বাড়ি নৌকা ঘাট হতে ইঞ্জিন নৌকা বা স্পিডবোট যোগে সরাসরি বারেকটিলা ও যাদুকাটায় যাওয়া যায়। সময় লাগবে ৪৫ মিনিট। খরচ হবে যাওয়া আসায় ৭-৮ হাজার টাকা। ইঞ্জিন নৌকায় খরচ হবে ২-৩ হাজার টাকা। সময় লাগবে ৩ ঘণ্টা। 

 বছরের যেকোন সময় সুনামগঞ্জ বৈঠাখালি খেয়া ঘাট হতে মোটরসাইকেল যোগে সরাসরি যাদুকাটা ও বারেক টিলা যেতে সময় লাগবে ৪৫ মিনিটি, টাকা খরচ হবে জনপ্রতি ২০০টাকা। সরকারি বা বেসরকারি কোন উন্নত মানের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা না থাকায় সারাদিন ঘুরে ফিরে সন্ধ্যায় সুনামগঞ্জ শহরে ফিরে যেতে পারেন। সেখানে রয়েছে আধুনিক রেস্ট হাউজ, হোটেল রেস্তোরাঁসহ অন্যান্য সুবিধা ।